দ. কোরদোফানের মুসলমানদের উপর চলছে সরকারি নিধনযজ্ঞ

দ. কোরদোফানের মুসলমানদের উপর চলছে সরকারি নিধনযজ্ঞ


0 205

বাংলা গ্যাজেট ডেস্ক: সুদানের প্রায় ৯৭ শতাংশ জনগণই ইসলাম ধর্মের অনুসারী। সুদানের দক্ষিণ কোরদোফানে বেসামরিক জনগণকে নির্যাতন, ধরপাকড় ও নির্বিচারে হত্যা করা হচ্ছে। সম্প্রতি মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে এপ্রিল পর্যন্ত পরিব্যাপ্ত একটি প্রতিবেদনে দেখিয়েছে সাধারণ মানুষের ওপর কিভাবে নির্বিচারে নিষিদ্ধ অস্ত্র যোগে হত্যা ও ব্যাপক ধরপাকড় চলছে।

সুদানের অস্থিতিশীল শহর দারফুরে তো অত্যাচার-নির্যাতন লেগেই আছে। তবে সাম্প্রতিক এই প্রতিবেদনটিতে দেখা যাচ্ছে দক্ষিণ কোরদোফানও প্রচণ্ডভাবে সামরিক শক্তির আগ্রাসী মনোভাবের শিকার। বস্তুত ক্ষমতার লড়াইয়েরই একটি বিস্তৃত প্লটে সাধারণ মানুষের ওপর চলছে এ নির্যাতন। এ অঞ্চলে সুদানের পিপলস লিবারেশন মুভমেন্ট-নর্থ এর ব্যাপক প্রভাব। এবং সারাক্ষণই দেশটির সরকারি সেনাবাহিনী সুদানিজ আর্মড ফোর্স-এর সঙ্গে এদের যুদ্ধ চলছে।

অবধারিতভাবে এই বিসংবাদের মধ্যে পড়ে পিষ্ট হচ্ছে জনসাধারন। দক্ষিণ কোরদোফানের জনসংখ্যা প্রায় ১২ লাখ। শুধুমাত্র জানুয়ারি থেকে এপ্রিল দক্ষিণ কোরদোফানে স্থাবর সম্পত্তি ফেলে প্রায় এক-তৃতীয়াংশ মানুষকে আভ্যন্তরীণ ভূমিচ্যূত হতে হয়েছে। স্থাবর সম্পত্তি ফেলে পালিয়ে যেতে হয়েছে প্রায় ১০০,০০০ মানুষকে। সরকারি সেনাবাহিনী কর্তৃক জনসমাগমস্থলে বোমা বিস্ফোরিত হয়েছে ৩৭৪টি। আহত ও নিহত হয়েছে অগণিত মানুষ।

দক্ষিণ কোরদোফানের প্রায় ১২ লাখ মানুষের স্বাস্থ্যসেবার জন্যে রয়েছে মাত্র দুইটি হাসপাতাল, যেখানে চিকিৎসক এবং শয্যার তীব্র সংকট বিরাজমান। বিশাল এ অঞ্চলের জন্যে মাধ্যমিক বিদ্যালয় আছে মাত্র তিনটি। এছাড়া ন্যূনতম নাগরিক সুবিধারহিত অবস্থায় দিনাতিপাত করছে লাখ লাখ মানুষ।

ক্ষমতার ভাগবাটোয়ারায় দক্ষিণ কোরদোফান অন্যতম প্রভাবকের ভূমিকায় রয়েছে। দক্ষিণ সুদান পৃথক হয়ে যাওয়ার পূর্বে ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলনকারীরা’ মেনে করেছিল দক্ষিণ কোরদোফান দক্ষিণ সুদানের ভাগে পড়বে। এখানকার সাধারণ মানুষেরাও চেয়েছিল তাই। কিন্তু তা সুদানেই পড়ে যাওয়ায় রাষ্ট্রের বিষ দৃষ্টির শিকার হচ্ছে তারা। রাষ্ট্র মনে করে এখানকার প্রত্যেকটি মানুষই কোনো না কোনোভাবে তার ক্ষমতা যন্ত্রের শত্রু।

 

 

NO COMMENTS

Leave a Reply