জনগণ জানমালের নিরাপত্তা চায়

জনগণ জানমালের নিরাপত্তা চায়


0 290

বাংলা গ্যাজেট, ২৪ এপ্রিল: মানুষের জীবনের নিরাপত্তা দিতে চরমভাবে ব্যর্থ হচ্ছে বর্তমান শাসন ব্যবস্থা ও শাসক গোষ্ঠী। সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডই তার প্রমাণ দিচ্ছে। ঘরে-বাইরে-অফিস-আদালত-শিক্ষাঙ্গনে কোথাও নিরাপদ নয় মানুষ। কখনো প্রকাশ্যে কখনো গোপনে হরহামেশা মানুষ খুন হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার গভীর রাতে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার প্রহ্লাদপুর ইউনিয়নে কুপিয়ে ঘুমন্ত মা ও মেয়েকে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় ছেলেও আহত হয়। এর আগে আশুলিয়ায় একটি ব্যাংকে ঢুকে প্রকাশ্যে হামলা চালায় ডাকাত দল। এতে ৬ জন খুনও হয়। যারা মানুষের নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত সেই আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতেও প্রতিনিয়ত গুম-খুন হচ্ছে মানুষ। আর রাষ্ট্র ক্ষমতায় যারা রয়েছেন, যারা ক্ষমতায় এসেছেন জনগণকে সব ধরণের নিরাপত্তা দিবেন বলে তারা ব্যস্ত নিজের ক্ষমতাকে কুক্ষিগত করতে। এমন অবস্থায় জনগণ দিশেহারা। তারা নিরাপত্তা চাইবেন কার কাছে?

কিন্তু জনগণ এসব দৃশ্য আর দেখতে চায় না। তারা চায় এমন একটি সমাজ যেখানে মানুষ তাদের জীবনের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা পাবে। যেখানে ঘরে নিশ্চিন্তে ঘুমাতে পারবে সে। সাগর-রুনির মত কিংবা গাজীপুরের মা-মেয়ের মত ঘরেও আতংকে থাকবে না। হত্যার শিকার হবে না।

জনগণ এমন শাসক চায় যে জনগণের জানমালের নিরাপত্তা দেওয়ার প্রতিজ্ঞা করে সেই প্রতিজ্ঞা ভঙ্গ করবেন না। বরং সে জনগনের জানমালকে আমানত ভেবে তার সুরক্ষায় নিবেদিত প্রাণ হিসেবে কাজ করবে। ঠিক যেভাবে জনগনের জানমালকে আমানত ভেবে তার সুরক্ষায় নিজের জীবনকে উৎসর্গ করেছিলেন রাষ্ট্রনায়ক ওমর ইবনুল খাত্তাব (রা.)। ইতিহাস থেকে জানা যায়, যখন উমার(রা) অর্ধ পৃথিবীর শাসক ছিলেন তখন তিনি (রা.) বলেছিলেন, “আমি নির্ঘুম রাত্রি কাটাই এ চিন্তায় যে, মসৃণ না করতে পারার কারণে কোন বকরী বাগদাদের রাস্তা দিয়ে হেটে যাওয়ার সময় তার খোঁড়ায় চোট পেলে আল্লাহ তায়ালা আমাকে হাশরের ময়দানে পাকড়াও করবেন।” যে শাসক বকরী বা ছাগলের চোট নিয়ে এত চিন্তিত তিনি মানুষের অধিকারের ব্যাপারে কতটুকু উদ্বিগ্ন ছিলেন তা বলাই বাহুল্য।

NO COMMENTS

Leave a Reply