‘জনগণের দৃষ্টি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতেই মিথ্যা খবর প্রকাশ’

‘জনগণের দৃষ্টি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতেই মিথ্যা খবর প্রকাশ’


0 514

বাংলা গ্যাজেট ডেস্কঃ দৈনিক যুগান্তরে ‘মৃত্যুর আগে ফাহিমের ভিডিও জবানন্দি’ শীর্ষক প্রতিবেদনে শিবিরকে জড়িয়ে যে খবর প্রকাশ হয়েছে তাকে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন খবর বলে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির।

এক প্রতিবাদ বার্তায় ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি আতিকুর রহমান ও সেক্রেটারি জেনারেল ইয়াছিন আরাফাত বলেন, জনগণের দৃষ্টি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতেই ছাত্রশিবিরকে জড়িয়ে বিভ্রান্তিকর কল্পকাহীনি রচনা করছে যুগান্তর। প্রতিবেদনে বিভ্রান্তির ছড়ানোর অপকৌশল হিসেবে প্রতিবেদক ‘মোয়াজ্জেম হোসেন নান্নু’ নামে পুলিশের অজ্ঞাত এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে বলা হয়েছে- হিজবুত তাহরীর ও জেএমবিকে ব্যবহার করে জামায়াত শিবির হত্যাকাণ্ড চালাচ্ছে। যা সম্পূর্ণ কাল্পনিক, বানোয়াট ও জঘন্য মিথ্যাচার।

প্রতিবাদ বার্তায় বলা হয়- গুপ্তহত্যার গুরুত্বপূর্ণ আসামি ফাহিমকে বন্দুকযুদ্ধের নাটক সাজিয়ে হত্যায় যখন দেশ বিদেশে সমালোচনার ঝড় বইছে তখন যুগান্তরের এই প্রতিবেদন কার স্বার্থে? জনগণ তা সহজেই অনুমান করতে পারে। ফয়জুল্লাহ যদি একদিনের মধ্যেই এতসব স্পর্শকাতর তথ্য দিয়ে থকে, তাহলে পুলিশ তাকে হত্যা করলো কেন? এই প্রশ্নের কোনো জবাব কি যুগান্তরের কাছে আছে?

শিবিরের এই দুই নেতা বলেন- পুলিশ চলমান গুম খুনের প্রকৃত সত্যকে আড়াল করতেই ফাহিমকে হত্যা করেছে। আর যুগান্তর তাদের এই অপকর্মকে ধামাচাপা দিতেই মিথ্যা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

প্রতিবাদলিপিতে আরো বলা হয়- কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের অজ্ঞাত এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে প্রতিবেদক আরো বলেছেন, ”দুইজন জামায়াত নেতার অর্থায়নে আত্মঘাতী স্কোয়াড গঠন করা হচ্ছে”। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। প্রতিবেদক এই মিথ্যা নাটকের স্কিপ্ট লিখতে গিয়ে বার বার শুধু অজ্ঞাত সূত্রের বরাত দিয়েছেন। আমরা মনে করি, কাল্পনিক সূত্রের বরাত দিয়ে প্রতিবেদক নিজের মনগড়া বক্তব্য লিখে পাঠককে বিভ্রান্ত করার কৌশল গ্রহণ করেছেন মাত্র। কোনো এক বিশেষ মহলের ইশারায় ছাত্রশিবিরকে টার্গেট করে অপপ্রচারের মিশনে নেমেছে যুগান্তর। এটা কোনো সাংবাদিকতা নয় বরং অপসাংবাদিকতার উদাহরণ। দেশে ঘটে যাওয়া নৃশংস খুনের আসল অপরাধীদের আড়াল করার ক্ষেত্রে যুগান্তরের মতো কিছু গণমাধ্যমের আগবাড়িয়ে অপপ্রচার অনেকাংশে দায়ী বলে জনগণ মনে করে।

নেতৃবৃন্দ বলেন, সত্য প্রকাশ করার সাহস না থাকলে এসব গণমাধ্যমের উচিৎ তা স্বীকার করে জাতির কাছে নিজেদের অবস্থান পরিস্কার করা। এমন স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে কারো ক্রীড়নক হয়ে মিথ্যাচার করা সাংবাদিকতার পবিত্র পেশার সাথে প্রতারণার শামিল। যা জাতি কখনোই প্রত্যাশা করেনা। আমরা এই মিথ্যা প্রতিবেদন প্রকাশের নিন্দা জানাচ্ছি। সেইসাথে এই বিভ্রান্তিকর মিথ্যা প্রতিবেদন প্রত্যাহার করার জন্য যুগান্তর কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।

নেতৃবৃন্দ এ ধরণের মিথ্যা ও ভিত্তিহীন প্রতিবেদন প্রকাশ থেকে বিরত থাকতে সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক ও গণমাধ্যমের প্রতি আহ্বান জানান।

[প্রেস-বিজ্ঞপ্তি]

 

 

NO COMMENTS

Leave a Reply