কেনিয়ার সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ২৮

কেনিয়ার সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ২৮


0 330

বাংলা গ্যাজেট ডেস্ক: কেনিয়ার উত্তরাঞ্চলের সীমান্তবর্তী এলাকায় একটি যাত্রীবাহী বাসে সন্ত্রাসীরা হামলা চালালে অন্তত ২৮ জন নিহত হয়েছে।  এ হামলার জন্য সোমালিয়ার আশ-শাবাব গোষ্ঠীকে সন্দেহ করা হচ্ছে।

রাজধানী নাইরোবিতে যাওয়ার পথে সোমালিয়ার সীমান্তবর্তী ম্যানদেরা কাউন্টিতে বাসটিকে থামায় অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা। এরপর যাত্রীদের ভেতর থেকে অমুসলিমদের আলাদা করে হত্যা করা হয়।

সোমালিয়ার তাকফিরি গোষ্ঠী আশ-শাবাব ২০১১ সাল থেকে নিজ দেশের পাশাপাশি কেনিয়ায়ও সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে আসছে। ওই বছর আশ-শাবাব বিরোধী যুদ্ধে সোমালিয়া সরকারকে সহযোগিতা করার জন্য দেশটিতে সেনা পাঠিয়েছিল কেনিয়া। এর প্রতিশোধ নিতে কেনিয়ায় হামলা শুরু করে আশ-শাবাব। কেনিয়ার যেসব কাউন্টিতে এ জঙ্গি গোষ্ঠী সবচেয়ে বেশি হামলা চালিয়েছে ম্যানদেরা সেগুলোর অন্যতম।

কেনিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, শনিবার সকালে যে বাসটিতে জঙ্গিরা হানা দেয় তাতে ৬০ জন যাত্রী ছিল। দেশটির একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, জঙ্গিরা যাত্রীদেরকে কুরআন পড়তে বলার পর যে তা পড়তে ব্যর্থ হয় তাকেই হত্যা করা হয়েছে।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন, মার্কিন নের্তৃত্বাধীন পশ্চিমা বিশ্ব ইসলামের সুনাম ক্ষুণ্ণ করতে আশ-শাবাবের মতো জঙ্গি গোষ্ঠী সৃষ্টি করেছে। ইসলামের বাহ্যিক কিছু আচার-আচরণকে পুঁজি করে এসব গোষ্ঠী এমন সব জঘন্য কর্মকাণ্ড করছে যার সঙ্গে এই ঐশী ধর্মের কোন প্রকার সম্পর্ক নেই। কুরআন পড়তে না পারলে বা বিধর্মী হলেই হত্যা করাতো দূরের কথা; কারো বিন্দু পরিমান রক্ত ঝরানোর অনুমতি ইসলাম দেয়নি।

বরং রাসুল (সা.) বলেছেন, কোন অমুসলিমের সাথে অবিচার করা হলে হাশরের ময়দানে তিনি(সা.) ওই অমুসলিমের পক্ষ নেবেন। এ ছাড়া অমুসলিমদের অধিকার যাতে লংঘন করা না হয় সেজন্য কড়া নির্দেশ রয়েছে ইসলামে।

এসব নামধারী ইসলামী দলগুলো ইসলাম সম্পর্কে বিশ্ববাসীর মনে ভুল ধারণা ঢুকিয়ে দিচ্ছে। এর ফলে ইসলামকে সবাই ভীতিকর ভাবছে। অথচ ইসলাম স্বগৌরবে প্রায় ১৩০০শত বছর বিশ্ব শাসন করেছে। সেসময় অমুসলিমেরা মুসলিম শাসকদের চিঠি লিখে জালিম শাসকের বিরুদ্ধে সাহায্য চাইত। তখন বিশ্বের কোটি কোটি অমুসলিম ইসলামের সৌন্দর্য দেখে মুগ্ধ হয়ে ইসলাম গ্রহণ করেছে।

NO COMMENTS

Leave a Reply